শিক্ষার্থীদের মধ্যে নেতৃত্বের ভাবনাকে বিকশিত করা এবং তাদেরকে উৎসাহ প্রদানের মাধ্যমে সমাজকে এগিয়ে নেয়ার উদ্দেশ্যে কাজ করছে বিওয়াইএলসি। আমাদের শিক্ষার্থীদের অগ্রযাত্রা এবং তাদের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানার জন্য এ বছর তাদের উপর একটি জরিপ করা হয়েছে।

Key Attributes of BYLC Programs

impact-infographic-1


impact-infographic-2


impact-infographic-3


impact-infographic-4


impact-infographic-5

 

Our graduates think

impact-infographic-6


impact-infographic-7


impact-infographic-8

নেতৃত্বের বাস্তবায়ন

ইন্দিরা রাহমান

ইন্দিরা রাহমান

ইন্দিরা রাহমানের নেতৃত্বে বিবিএলটি ৯ কার্যক্রমের প্রতিযোগীদের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল রোড টু স্কুল, যখন তারা কার্যক্রমের ‘লিডারশীপ ইন অ্যাকশন’ ধাপে কাজ করছিল। তেজগাঁ শিল্প এলাকার ৫-১২ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের শিক্ষাকেন্দ্র হিসেবে এর যাত্রা শুরু হয়। এখানকার শিক্ষার্থীদের জন্য একটি সামগ্রিক শিক্ষা ব্যবস্থা রয়েছে। বাংলাদেশের জাতীয় স্কুল কারিকুলামের বাংলা, ইংলিশ এবং গনিতের পাশাপাশি বাংলাদেশের ইতিহাস, শিল্প এবং খেলাধুলায়ও গুরুত্ব প্রদান করা হয়। এমনকি এ পরিকল্পনায় তথ্য প্রযুক্তি ও বিজ্ঞান শিক্ষা অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। বিবিএলটি ক্লাস শেষে শিক্ষার্থীরা এ কার্যক্রমকে চালু রাখে। ২০১৫ সালে এ কার্যক্রম ডেভিস শান্তি পুরস্কার পায়। এই একই অনুদান থেকে বিওয়াইএলসিরও যাত্রা শুরু হয়েছিল।

ওসামা বিন নূর

ওসামা বিন নূর

বিবিএলটি ৫ কার্যক্রমের শিক্ষার্থী ওসামা বিন নুর এবং মাকসুদ মানিক এর মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তারা তরুণদের শিক্ষা ও কর্মক্ষেত্রের উন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় বিভিন্ন তথ্য পাওয়ার গুরুত্ব অনুধাবন করতে পেরেছিলেন। ইয়ুথ অপরচুনিটিস বর্তমানে বিশ্বের সর্ব বৃহৎ মাধ্যমে যেখানে তরুণরা প্রয়োজনীয় নানা ধরণের তথ্য পেতে পারে। এর লক্ষ্য হচ্ছে তরুণদের মাঝে তাদের সম্ভাবনার তথ্য ছড়িয়ে দেয়া যাতে তারা তাদের জীবনের বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা দূর করতে পারে। সম্ভাবনার সাথে তরুণ জীবনের যে দূরত্বটুকু রয়েছে তা দূর করতে পারলেই একটি সুন্দর পৃথিবী গড়ে তোলা সম্ভব।  আর সেই লক্ষ্যেই কাজ করছে ইয়ুথ অপরচুনিটিস। বিশ্ব জুড়ে তরুণদের সম্ভাবনাকে ছড়িয়ে দেয়ার ক্ষেত্রে অবদানের জন্য ওসামা সম্প্রতি ফরবস এশিয়ার ৩০ জন সামাজিক উদ্যোক্তাদের মধ্যে একজন নির্বাচিত হয়েছেন যাদের বয়স ৩০ বছরের কম।

ওভিক আলম

ওভিক আলম

ওভিক আলমের হাত ধরেই যাত্রা শুরু করেছিল ওয়েবেবল যা একটি ডিজিটাল ক্রিয়েটিভ এজেন্সি। এটি সম্মিলিত ভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল বিবিএলটি ৪ কার্যক্রমের শিক্ষার্থী আনিস হান্নান এর মাধমে। ১৮ জন ডিজিটাল মার্কেটিং প্রজুক্তিবিদ নিয়ে গঠিত বাংলাদেশ নির্ভর ওয়েবেবল-এর উদ্দেশ্য হল কিছু নির্ধারিত গ্রাহকের জন্য আধুনিক যোগাযোগ ব্যবস্থাকে আর সহজতর করা। ক্যাস্পারেস্কি, আড়ং, ডেল, বে ডেভেলপমেন্ট, রহিমআফরোজ, বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরাম, ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো, বিটডিফেন্ডার, এখনি.কম ছাড়াও আর অনেক সুনামধন্য প্রতিষ্ঠান ওয়েবেবল এর গ্রাহকদের মধ্যে অন্যতম। ২০১৫ তে ওভিক এশিয়ার সবচেয়ে প্রভাবশালী ডিজিটাল মিডিয়া ব্যক্তি হিসেবে পুরস্কৃত হয়েছেন।