Apr 22 2021

“পাঁচটি ব্যবসায়িক উদ্যোগকে ৮ লক্ষ টাকা করে দিলো বিওয়াইএলসি”

বাংলাদেশ ইয়ুথ লিডারশীপ সেন্টার (বিওয়াইএলসি) আয়োজিত ইয়ুথ এন্টারপ্রেনারশিপ চ্যালেঞ্জের বিজয়ীদের নাম রাজধানীতে একটি অনুষ্ঠানে ঘোষণা করা হয়েছে। উক্ত অনুষ্ঠানে পাঁচটি বিজয়ী দলকে সীড ফান্ডিং হিসেবে ৮,০০,০০০ টাকা করে মোট ৪০,০০,০০০ টাকা প্রদান করা হয়।

পাঁচটি বিজয়ী দলগুলো হলো, সেলোলোজ – ভিত্তিক বায়োডেগ্রেডেবল, বায়োপলিমার ব্যাগের উৎপাদন ও প্যাকেজিং প্রতিষ্ঠান ইকোর‍্যপস; শিক্ষামূলক এবং অংশগ্রহণমূলক ভাবে শেখার উপকরণ ও খেলনা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান টিঙ্কারস; কৃষি প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান এগ্রি মাশরুম এবং মাল্টি-ফার্মিং; ইভেন্ট লজিস্টিক্সের জন্য অনলাইন বিপণন প্ল্যাটফর্ম সেলভিস এবং কৃষক, স্বতন্ত্র বিনিয়োগকারী ও অংশীদারি খুচরা বিক্রেতাদের জন্য ক্লাউড ভিত্তিক মাল্টি-চ্যানেল প্ল্যাটফর্ম ডিজিগ্রো।
ইয়ুথ এন্টারপ্রেনারশিপ চ্যালেঞ্জ বিওয়াইএলসির উদ্যোক্তা উন্নয়ন শাখার একটি উদ্যোগ। এই চ্যালেঞ্জের প্রধান উদ্দেশ্য হচ্ছে তরুণ উদ্যোক্তাদের উদ্ভাবনী ব্যাবসায়িক ধারনা বাস্তনায়নে সহযোগিতা করা। চ্যালেঞ্জের প্রাথমিক পর্যায়ে সারা বাংলাদেশ থেকে প্রায় ৫ শতাধিক ব্যবসায়িক ধারণা এসেছিল বিওয়াইএলসির কাছে।

পরবর্তীতে এই ৫ শতাধিক ধারনা থেকে ১৬টি দলকে বাছাই করা হয়। যার মধ্যে সর্বাধিক উদ্ভাবনী ব্যবসায়িক ধারণা রয়েছে এমন ৫টি দলকে বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে গঠিত একটি প্যানেল দ্বারা নির্বাচিত করা হবে। বিজয়ী ৫ টি দল আর্থিক সহায়তা ছাড়াও ছয় মাস প্রশিক্ষন, এক বছরের জন্য অফিস সুবিধা সম্বলিত কো-ওয়ার্কিং স্পেস এবং বিশেষজ্ঞদের থেকে সার্বক্ষণিক পরামর্শ নেওয়ার সুযোগ পাবে।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন বলেন, “বিওয়াইএলসি ভেঞ্চারস একটি সময়োচিত উদ্যোগ যা পরবর্তী প্রজন্মের উদ্যোক্তাদের খুঁজে বের করে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষন ও বিনিয়োগ, প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষন প্রদান করছে যা বাংলাদেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।”
বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাজ্যের ডেপুটি হাই কমিশনার কানবার হোসেন-বোর বিওয়াইএলসির প্রশংসা করে বলেন, “তরুন উদ্যোক্তাদের বর্তমান পরিবেশে ব্যবসায়িক সাফল্য লাভের জন্য শুধুমাত্র মূলধনই যথেষ্ট নয়। এই প্রোগ্রামের মাধ্যমে বিজয়ী দলগুলো বাস্তব দক্ষতা শিখবে যা তাদের টেকসই হতে এবং তাদের ব্যবসায়ের মাধ্যমে অর্থনীতিতে দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব তৈরি করতে সহায়তা করবে।“

“কর্মসংস্থানের জন্য বাংলাদেশি যুবকদের কেবলমাত্র চাকুরির উপর নির্ভরশীল হওয়া উচিত নয়। প্রযুক্তি নির্ভর দ্রুত অগ্রগতির এই যুগে তরুণদের উচিত চাকুরির উপর নির্ভরশীল না হয়ে নতুন নতুন ব্যবসায়িক উদ্যোগের মাধ্যমে নিজের কর্মসংস্থানের পাশাপাশি অন্যের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা”। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন এর নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম এ কথা বলেন।
অনুষ্ঠানে বিওয়াইএলসির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ইজাজ আহমেদ বলেন গত দশ বছর যাবত বাংলাদেশের উদীয়মান তরুণদের নিয়ে কাজ করছে বাংলাদেশ ইয়ুথ লিডারশীপ সেন্টার। বিওয়াইএলসি ভেঞ্চারস একটি নতুন উদ্যোগ যা সম্ভাবনাময় তরুন উদ্যোগক্তা তৈরিতে কাজ করবে।